বাংলায় বিজেপি এলে ভয়ংকর ক্ষতি হবে বাংলার, বললেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ

আঞ্চলিক নেতাদের পরিবর্তে শাসন ক্ষমতা কেন্দ্রীয় নেতাদের হাতে তুলে দিলে গোটা দেশের মতো বাংলারও সামাজিক অবক্ষয় ঘটবে। ক্ষমতার কেন্দ্রীকরণ ঘটলে তাদের হাতে গিয়েই পৌঁছবে, যাদের আর্থ–সামাজিক নীতি ‘‌অত্যন্ত ত্রুটিপূর্ণ’‌।

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনের মাঝে নাম না করে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে বিঁধলেন নোবেল–জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। বাংলার দীর্ঘ রাজনৈতিক ইতিহাসের নিরিখে এবারের নির্বাচনে যেভাবে ‘‌পরিচিতির রাজনীতি’‌র কুৎসিত রূপ মাথাচাড়া দিয়েছে, তার তীব্র সমালোচনা করেন অমর্ত্য সেন। শুধু তাই নয়, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের লক্ষ্যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর থেকে শুরু করে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুদের কঠোর পরিশ্রমের কথা মনে করিয়ে দিলেন তিনি।

একুশের নির্বাচনে যেভাবে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির অস্ত্রে শান দেওয়া হচ্ছে, তা দায় সরাসরি হিন্দুত্ববাদীদের ঘাড়েই ঠেলে দিলেন অর্থনীতিবিদ। তাঁর কথায়, ‘‌১৯৪৬ সালের পর সাম্প্রদায়িক বিভাজনের এই ভয়ঙ্কর রাজনীতি আগে দেখা যায়নি, তা এখন ঘটছে। চল্লিশের দশকে গান্ধীজি যা করেছিলেন, তা মুছে ফেলতে চাইলে বাংলার বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। এই বিষয়টিকে অস্বীকার করার প্রবণতাকেই যেন আরও বেশি করে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে এবারের নির্বাচনে। গান্ধীজি স্পষ্ট ভাষা বুঝিয়েছিলেন, বাংলা একতা চায়, বিভাজন নয়।’‌

তৃণমূলের ‘‌বহিরাগত’ তত্ত্বের সমালোচনা করলেও তাঁর বক্তব্য, ‘‌যখন বড় কোনও রাজনৈতিক দল বাংলার মোট জনসংখ্যার একাংশকে, আরও স্পষ্ট করে বললে, বাঙালি মুসলিমদের সমর্থন না নিয়ে শুধু হিন্দুদের সমর্থনে ক্ষমতায় আসতে চায়, তখন বিভাজন রেখাটা আরও বেশি করে স্পষ্ট হয়।’‌

মমতা সরকারের জনকল্যাণমূলক প্রকল্প, মূলত মেয়েদের জন্য যে প্রকল্প চালু হয়েছে, তার প্রশংসা করার পাশাপাশি গ্রামীণ পরিকাঠামো এবং খাদ্য সুরক্ষা ব্যবস্থারও প্রশংসা করেন অমর্ত্য সেন। সে বিষয়ে বলতে গিয়ে গুজরাটের প্রসঙ্গও টানেন তিনি। বলেন, ‘‌পারিবারিক রোজগার কম হলেও বাংলার শিশুদের স্বাস্থ্য গুজরাটের শিশুদের চেয়ে অনেক ভালো। যা এখানকার সরকারের ভাল কাজেরই প্রমাণ।’‌ তবে কিছু জায়গায় অবশ্যই ফাঁকফোকর রয়েছে, মনে করেন তিনি। পাশাপাশি দুর্নীতির বিষয়টি নিয়েও সরব হন অমর্ত্য সেন

 

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য