প্রধানমন্ত্রীকে রাম ছাগলের সাথে তুলনা, ভাষার শালীনতা হারালেন তৃণমূলের সৌগত

বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে দিন দিন ভাষার শালীনতা হারাচ্ছে তৃণমূল নেতৃত্ব। সেই তালিকায় রয়েছে অনুব্রত মন্ডল থেকে শুরু করে সৌগত রায়। এমনকি তালিকা থেকে বাদ নেই মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্প্রতিকালে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় যেভাবে বিজেপি বিরোধীতা করতে গিয়ে ভাষার শালীনতা হারাচ্ছেন তাতে মনে হচ্ছে মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে প্রতিযোগীতায় নেমেছেন তিনি। এদিনও তাঁর বক্তব্য থেকে সেই একই বার্তা পেল রাজ্যের মানুষ।

এদিন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাকে জোকার বলে সম্বোধন করেন সৌগত রায়। শুধু নাড্ডা নন,  অমিত শাহ ‘পেট মোটা’ বলে এমনকী খোদ প্রধানমন্ত্রী মোদীর বিরুদ্ধেও কটূক্তি করেছেন তিনি।  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর দাড়ি প্রসঙ্গে বলেন, প্রধানমন্ত্রীও দাড়ি রাখছেন, রামছাগলও দাড়ি রাখে। তিনি আরও  বলেন,’‌লকডাউনের সময় মোদীর ব্যর্থতার জন্য পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরতে হয়েছে হাজার হাজার মানুষকে।  তাঁদের জন্য ৫ হাজার টাকা সাহায্য পর্যন্ত মোদী সরকার করেনি।

 এছাড়া তিনি বলেন, সময় মতো লকডাউন না করায় করোনা এত বাড়ল। কেন সময় মতো করেনি?‌ কারণ, ট্রাম্প আমেদাবাদে গিয়েছিলেন। তখন মোদী আর অমিত শাহ আমেদাবাদে ছিল ট্রাম্পকে অভ্যর্থনা দেওয়ার জন্য। একদিকে দিল্লিতে দাঙ্গা হচ্ছে আর ভারতবর্ষে  করোনা হচ্ছে।  ট্রাম্প হেরে যাওয়ায় মোদীর উচিত ছিল  ভারতের মানুষের কাছে কান ধরে ক্ষমা চাওয়া। সেই সৎ সাহস তার নেই। একইসঙ্গে তিনি কটাক্ষ করে বলেন “ওখানে ট্রাম্প হেরেছে, এবার মোদী হারবে।”

 

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য