মমতার বিরুদ্ধে প্রথম জয়ের পর মুখ খুললেন শুভেন্দু

যে“মাননীয়াকে নন্দীগ্রামে হাফ লাখ ভোটে হারাবই, লিখে রেখে দিন।” গত ডিসেম্বরে এমনই দাবি রেখেছিলেন তৃণমূলে ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া শুভেন্দু অধিকারী। রবিবার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই, চূড়ান্ত নাটকে শেষে ১৯৫৩ ভোটে জিতলেন বটে শুভেন্দু। হারালেন একদা নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জয়ের পর শুভেন্দুর আশ্বাস, নন্দীগ্রামের উন্নয়নের জন্য এবার কাজ করবেন তিনি। এই জয়ের জন্য নন্দীগ্রামবাসীকে কৃতজ্ঞতাও জানান তিনি।

যদিও এই পরাজয় মানতে নারাজ মমতা। তৃণমূল নেত্রী আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তৃণমূলও পুনর্গণনার দাবি জানিয়েছে। কিন্তু রাতের দিকে কমিশন সাফ জানিয়েছে, শুভেন্দুই জিতেছেন, পুনর্গণনা হবে না। নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে গণনার ফলাফলের ছবি পোস্ট করেছেন প্রাক্তন মন্ত্রী। লিখেছেন, “আমার উপর বিশ্বাস এবং ভরসা রাখার জন্য নন্দীগ্রামের প্রতিটি মানুষকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এই জয় নন্দীগ্রামে প্রতিটি মানুষের জয়। আগামী দিনে নন্দীগ্রামের উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করাই আমার সংকল্প।”

একটা লড়াই দেখল বটে নন্দীগ্রাম। সেই ১৪ বছর আগে জমি আন্দোলনের থেকে কোনও অংশে কম ছিল না এই লড়াই। প্রাক্তন নেত্রীকে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়েননি শুভেন্দু। পাল্টা মমতাও পুরনো সতীর্থকে লড়াইয়ের ময়দানে জায়গা ছাড়েননি। নিজের কেন্দ্র ভবানীপুর ছেড়ে নন্দীগ্রামে দাঁড়িয়েছেন। রাজনৈতিক মহলের মত ছিল, শুভেন্দুকে রাজনৈতিক ভাবে পর্যুদস্ত করাই ছিল লক্ষ্য। কিন্তু দিনের শেষে বাজিমাত করলেন শুভেন্দু।

এবারের বিধানসভা নির্বাচনে যেখানে রাজ্যে ২০০ আসন পাওয়ার দাবি জানানো বিজেপির ভরাডুবি হল, সেখানে উজ্জ্বল মুখ হয়ে রইলেন শুভেন্দু। হার মানেননি। তাঁর সঙ্গে দলবদলু অনেকেই মুখ থুবড়ে পড়েছেন, কিন্তু তিনি মুখ রক্ষা করেছেন। হয়তো আগামিদিনে বিরোধী দলনেতার আসনে তাঁকেই বসাতে পারে গেরুয়া শিবির!

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

বিজেপির শক্তি কমে যাচ্ছে বাংলার বিধানসভায়, শুরুতেই ইনিংসে ইতি দুই বিধায়কের
নিজের দলের সম্পর্কে বিষ্ফোরক অভিযোগ সুজাতা খাঁর, ঘাসফুলের নোংরা লোকদের জন্য হয়েছে তার হার
মতপার্থক্য! বালুমাটির শুভেন্দু বিরোধী দলনেতা হয়েই খারিজ করলেন লালমাটির দিলীপের তত্ত্ব
বিরোধী দলনেতা হয়েও মন ভালো নেই শুভেন্দুর, কারন‌ মমতার বাংলা ভালো নেই
কোন‌ পুরুষ না, মন্ত্রীসভায় জায়গা করে নিলেন‌ জঙ্গলমহলে তিন কন্যা
তবে কি ঝড়ে গেলো মুকুল?জায়গা করে নিলো শুভেন্দু
বিধায়ক হয়েই অশোক ভট্টাচার্যের বাড়িতে শংকর, পা ছুঁয়ে গুরুকে প্রণাম করলেন শিষ্য
চোর, লম্পটদের জন্য এতবড় হার বিজেপির।তথাগতর নিশানা থেকে বাদ গেল না দিলীপ,কৈলাসরা
কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের প্রয়োজন নেই কোন, এতদিন অনেক করার জন্য ধন্যবাদ-সুর ছড়ালেন দিলীপ বাবু
যতদিন বাঁচব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শ্রদ্ধা করব: রাজীব