রাজ্যে শান্তি না‌ ফেরা পর্যন্ত বিধানসভা বয়কটের ডাক দিলীপ ঘোষের

আট দফার নির্বাচনে যে ভয়ঙ্কর হিংসার ছবি দেখা গিয়েছিল, ২ মে ফলাফল ঘোষণার পরও তার বিশেষ পরিবর্তন ঘটেনি। বৃহস্পতিবার, খোদ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই রাজ্যে নির্বাচন-পরবর্তী হিংসার ঘটনায় অন্তত ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন। মূখ্যমন্ত্রী দাবি করেছেন,  ৩৩ জনের মধ্যে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি – দুই দলেরই ১৬ জন করে কর্মী এবং আইএসএফ-এর একজন কর্মী প্রাণ হারিয়েছেন। এই নিহতদের প্রত্যেকের পরিবারের সদস্যদের ক্ষতিপূরণ হিসাবে সরকারের পক্ষ থেকে দুই লক্ষ করে টাকা দেওয়া হবে বলেও ঘোষণা করেছেন মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

তবে এবার রাজ্যে নির্বাচন-পরবর্তী হিংসার কারনে বিজেপি দলের রাজ্য সভাপতি নজির বিহীন সিদ্ধান্ত নিলেন। তিনি জানান এই প্রথমবার বিধধানসভার স্পিকার নির্বাচন অনুষ্ঠানে থাকবেন না প্রধান বিরোধী দলের একজন বিধায়কও।সরকারের পক্ষ থেকে রাজ্যে নির্বাচন পরবর্তী হিংসা নিয়ন্ত্রণ না করা পর্যন্ত বিধানসভার অধিবেশনে বিজেপির নবনির্বাচিত বিধানসভা সদস্যরা সভায় অংশ নেবেন না। শনিবারই, বিধানসভার স্পিকার নির্বাচন। সেই অনুষ্ঠানে থাকন নি বিজেপি বিধায়করা।

দিলীপ ঘোষ আরও বলেছেন, যতক্ষণ না পর্যন্ত বিজেপি বিধায়করা সম্পূর্ণরূপে সুরক্ষা না পান, ততক্ষণ তাঁরা বিধানসভায় আসবেন না। বিজেপি বিধায়করা কিংবা তাঁদের কর্মীরা যখন রাস্তাঘাটে নির্ভয়ে চলাচল করতে সক্ষম হবেন, তখনই বিধায়নসভায় অংশ নেবেন বিজেপি বিধায়করা। রাজ্য বিজেপির সবাপতি আরও জানান, এই হিংসা বন্ধ করতে এবং হিংসায় ক্ষতিগ্রস্থদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়ে সরকার উদ্যোগ নেবে বলেই আশা করছেন তাঁরা।

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য