‘একটা দল ছেড়ে এসেছিলেন, আরেকটা দলে যাবে’ বিস্ফোরক দিলীপ

বাংলায় ব্যাপক জয় পেয়েছে তৃণমূল। বিজেপিকে পর্যদুস্থ করে রাজ্যে তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরেই দল ভাঙার গুঞ্জন শুরু হয়েছে বিজেপির অন্দরে। বিধানসভা ভোটের আগে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়া বহু নেতাই এখন বেসুরো গাইছেন। এরই মধ্যে মুকুল রায়ের অসুস্থ স্ত্রীকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখতে যাওয়ার পরেই জল্পনা আরও জোরাল হয়েছে।।’তবে কি এবার গেরুয়া শিবির ছেড়ে ফের অন্য দলে পা বাড়বেন গেরুয়া শিবিরের বহু নেতা!’

এবার এই দলবদলের গুঞ্জন নিয়ে মুখ খুললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বিজেপির কেউ দল বদল করতে চাইলে কি পদক্ষেপ নেবে গেরুয়া শিবির? এর জবাবে দিলীপ ঘোষ জানান, ‘এটা গণতান্ত্রিক দেশ। যে কেউ দল বদল করতে পারে। একটা দল ছেড়ে এসেছিলেন, আরেকটা দলের যাবেন। গায়ের জোরে কাউকে আটকানো যাবে না। কিছু কিছু লোক উদ্দেশ্য নিয়ে দল করে। হাজার হাজার লোক এসেছে। একআধজন চলে গেলে যেতে পারেন।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য,বুধবার সন্ধ্যে  নাগাদ মুকুল রায়ের স্ত্রীকে দেখতে হাসপাতালে পৌঁছন  অভিযেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে গিয়ে মুকুল রায়ের স্ত্রীর শারীরিক অবস্থার খোঁজও নেন তিনি। এই নিয়ে মুকুল রায়ের ছেলে শুভ্রাংশু রায় বলেন, ‘মা অত্যন্ত অসুস্থ। এই অবস্থায় তাঁকে দেখতে এসেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ধরনের সৌজন্যের রাজনীতিক উদাহরণ আগে রয়েছে কিনা আমার জানা নেই এবং ভবিষ্যতেও দেখা যাবে কিনা জানি না। আমি অভিষেক এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে কৃতজ্ঞ।’

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য