মাথার চুল বিক্রি করে তিন সন্তানের খাবার জোটালেন অসহায় মা

নিজস্ব প্রতিবেদন : ঘটনাটি ভারতের দক্ষিণাঞ্চলের রাজ্য তামিলনাড়ুর । প্রেমা সেলভাম নামে এক মহিলা নিজের সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিতে মাথার চুল বিক্রি করে মাতৃত্বের বিরল নজির সৃষ্টি করেছেন। এটি সন্তানের প্রতি মায়ের চিরন্তন ভালোবাসা । তবে চুল বিক্রি করে দেওয়ার পর পাওনাদারদের অর্থ পরিশোধ করার কোন উপায় নেই প্রেমার হাতে ।

স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে তিন সন্তান নিয়ে চরম কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছিলেন তিনি। অবশেষে এমনই কষ্টের একদিনে সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিতে মাত্র 150 টাকায় নিজের চুল বিক্রি করে দেন প্রেমা । তার স্বামীর মৃত্যু স্বাভাবিক ছিল না । ঋণের চাপে জর্জরিত হয়ে আত্মহত্যা করেছিল সে । স্বামীর মৃত্যুর আগে তার দুজন একটি ইটভাটায় কাজ করতেন। নিজস্ব ইটভাটা করার স্বপ্ন দেখেছিলেন তার স্বামী । আর সেই কারণে ঋণ নিয়েছিলেন । তবে কল্পনার বাস্তবায়ন হয়নি । সেই হতাশা থেকে স্বামী একদিন আত্মহত্যা করেন ।

বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে প্রেমা বলেন,  ‘আমি ইটের ভার বহন করতে পারতাম না। জ্বরে আক্রান্ত তিন মাস অসুস্থ  হয়ে পড়ে ছিলাম। একদিন আমার সাত বছরের ছেলে কালিয়াপ্পান স্কুল থেকে ফিরে খাবার চাইল। খাবার না পেয়ে সে ক্ষুধায় কান্না শুরু করল। আমার কাছে 10 টাকাও  ছিল না। হঠাৎ উপলব্ধি করি, একটি জিনিস আছে, যা বিক্রি করা ‍যায়। প্রেমা বলেন, ‘একটি দোকানের কথা মনে আসে, যারা চুল কিনত। আমি সেখানে যাই এবং মাথার পুরো চুল 150 টাকায় বিক্রি করে দিই।

কিন্তু ওটা তো এক দিনের ব্যবস্থা হলো। এরপর? যে সাহায্য তার দরকার ছিল, তা অপ্রত্যাশিতভাবে তার কাছে এসে হাজির হয়। তাদের সাহায্য এগিয়ে আসেন বালা মুরুগান। প্রেমার অবস্থা সম্পর্কে জানতে পেরে তিনি বিস্মৃত হন। বালা জানেন কীভাবে দারিদ্র্য মানুষকে বেপরোয়া করে তোলে। যে পরিস্থিতির মধ্যে বালা বড় হয়েছিলেন, তা থেকে এখন তার বাস অন্য জগতে। এখন তিনি একটি কম্পিউটার গ্রাফিকস সেন্টারের মালিক।

বালা প্রেমার সঙ্গে দেখা করে নিজের কাহিনি শুনিয়ে আশা জাগালেন। এরপর প্রেমার কথা লিখলেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এবং ব্যাপক সাড়া পেলেন। বালা বলেন, ‘একদিনে আমি 1 লাখ 20 হাজার টাকা  সাহায্য পেয়েছি।  এই অর্থে তার বেশির ভাগ ঋণ পরিশোধ হয়ে যাবে। এরপর প্রেমার অনুরোধেই বালা  তহবিল তোলা বন্ধ করেন।

 

chakdaha24x7
Author: chakdaha24x7