মোদির বৈঠকে মমতার আচরণ লজ্জাজনক, তীব্র আক্রমণ শুভেন্দু অধিকারীর

করোনা নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীদের চুপ করিয়ে রাখা হল, তা নিয়ে সরব হয়েছেন মমতা ব্যানার্জি। আর তা নিয়ে পালটা আক্রমণ করল বিজেপি। বৈঠক নিয়ে অকারণে রাজনীতি করছেন মমতা, দাবি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর। একই সুরে মুখ্যমন্ত্রীকে আক্রমণ করেছেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।
বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই জেলার আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। কোভিড মোকাবিলায় তাঁদের প্রচেষ্টার প্রশংসা করাই ছিল উদ্দেশ্য। কিন্তু এখানে মুখ্যমন্ত্রীদের কিছু বলতে না দেওয়া নিয়ে অপমানিত বোধ করেন মমতা।

তিনি পরিষ্কার জানান, এভাবে মুখ্যমন্ত্রীদের ডেকে এনে অপমান করেছেন প্রধানমন্ত্রী। করোনা নিয়ে বৈঠকে এত ঢিলেঢালা ভাব কেন তাঁর, প্রশ্ন তুলেছেন মমতা। গেরুয়া শিবিরের পালটা দাবি, মমতা অহেতুক রাজনীতি করছেন। রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেছেন, আজকের বৈঠক ছিল প্রধানমন্ত্রী এবং জেলাশাসকদের ভাল কাজ করা নিয়ে আলোচনার। তা নিয়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী যা করলেন তা শোভনীয় নয়। রবিশঙ্করের অভিযোগ উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসককে কথা বলতে দেননি মমতা।

সক্রিয় হলেন সদ্য নির্বাচিত বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু। টুইট করে বললেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এবং জেলাশাসকদের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর আচরণ লজ্জাজনক। মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে এর মধ্যে বহু বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী, তখন ক’টা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তিনি? একটাও না। আজ যে সাতজন জেলাশাসকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী কথা বলেছেন সবই অবিজেপি রাজ্যের। কেন্দ্র-রাজ্য সমন্বয়ের প্রতি প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়সংকল্প।’

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য