আজকে বিধায়ক পদ না ছাড়লে কঠোর পদক্ষেপ, মুকুলকে হুঁশিয়ারি শুভেন্দুর

রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে কৃষ্ণনগর উত্তর থেকে বিজেপির হয়ে প্রার্থী হয়ে জিতেছিলেন মুকুল রায়। এরই মধ্যে তিনি তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। যদিও বিধায়ক পদ এখনও ছাড়েননি তিনি। এই অবস্থায় আজকের মধ্যে বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা না দিলে মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজের আবেদন জানাবে বিজেপি। এমনই হুঁশিয়ারি দিলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী।

মুকুল রায়ের নাম না নিয়েই শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “কৃষ্ণনগর উত্তরের বিধায়ক দল ত্যাগ করেছেন। আশা করি কালকের মধ্যে পদত্যাগ করবেন। যদি না করেন তবে আমরা বুধবার বিধানসভার অধ্যক্ষের কাছে দল বিরোধী আইন কার্যকর করার জন্য আবেদন জানাব।” প্রয়োজনে মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজ করার জন্য আদালতে যাওয়ারও হুমকি দিয়েছেন শুভেন্দু।

রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে তোপ দেগে শুভেন্দু অধিকারীর বলেন, “আমরা ভেবেছিলাম শাসকদল ২১৩ আসন জিতে আসার পর অশান্তি বন্ধ হবে। কিন্তু এরপরও আমরা চন্দননগর এবং তিলজলার মতো ঘটনা দেখলাম। পশ্চিমবঙ্গে নারীসুরক্ষাও আজ বিপন্ন।।ভোট মেটার পর থেকে রাজ্যে একাধিক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু রাজ্য সরকার কোনও পদক্ষেপই করছে না।”এক সময় দুজনই ছিলেন তৃণমূলে। লোকসভা ভোটের বেশ কিছুটা আগেই গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান মুকুল। অন্যদিকে বিধানসভা ভোটের কিছুদিন আগে বিজেপিতে যোগ দেন শুভেন্দু অধিকারী। গেরুয়া শিবিরে এসে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করছিলেন। কিন্তু কয়েকদিন ঘুরতে না ঘুরতেই এখন একে অপরের প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী মুকুল এবং শুভেন্দু। ফলে রাজনীতির ময়দানে কেউ কাউকে এক ইঞ্চি জমি ছেড়ে কথা বলছেন না।

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য