আমি এখন আর BJP নেতা নেই, কেবল সদস্য মাত্র: তথাগত

একুশের ভোটে বাংলায় বড় জয় পেয়েছে তৃণমূল। বিজেপিকে পর্যদুস্থ করে রাজ্যে তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরেই BJP-র বিপর্যয়ের পর দলীয় নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে একের পর এক টুইট করে চলেছেন তথাগত রায় । এবার কারামত যেন আক্ষেপের সুর শোনা গেল তথাগতর গলায়। এবার তথাগত বললেন, ‘আমি এখন আর BJP নেতা নেই, কেবল সদস্য মাত্র’। যদিও দলের প্রতি তাঁর ক্ষোভ-অভিমান নেই বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কিছু আগেই টুইটারে তথাগত রায় টুইটে লিখেছিলেন, ‘যা বলেছিলাম ঠিক তাই। কাছা খুলে যাদের বিজেপিতে স্বাগত করা হয়েছিল, যাদের খাতিরে বিজেপির বিশ-ত্রিশ বছরের পুরোনো কর্মীদের চরম উপেক্ষা করা হয়েছিল তারা সবাই এক এক করে তৃণমূলে ফিরে যাচ্ছে’। সেই বিষয় নিয়ে তিনি বলেন, ‘দিল্লিতে গিয়ে আমার বক্তব্য জানাতে বলা হয়েছিল। কোভিডের জন্য যেতে পারিনি। দলের হেরে যাবার কারণ সম্পর্কে প্রকাশ্যে মন্তব্য করেছি। অর মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কোনও বিষয় নেই’।

এর আগে তারকাদের প্রার্থী করা নিয়ে দিলীপ ঘোষ, কৈলাশ বিজয়বর্গীয়দের নাম করে নিশানা করে ফেসবুক পোস্টে তথাগত রায় লিখেছিলেন, ‘পায়েল শ্রাবন্তী তনুশ্রী ইত্যাদি ‘নগরীর নটীরা’ নির্বাচনের টাকা নিয়ে কেলি করে বেড়িয়েছেন আর মদন মিত্রর সঙ্গে নৌকাবিলাসে গিয়ে সেলফি তুলেছেন (এবং হেরে ভূত হয়েছেন) তাঁদেরকে টিকিট দিয়েছিল কে? কেনই বা দিয়েছিল? দিলীপ-কৈলাশ-শিবপ্রকাশ-অরবিন্দ প্রভুরা একটু আলোকপাত করবেন কি?’ শ্রাবন্তী-পায়েলদের রাজনৈতিক বুদ্ধিমত্তা নেই বলেও সরব হন তথাগত। সেই সঙ্গে মদন মিত্রকে প্লে বয় বলেও বিঁধেন তিনি।

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য