তৃণমূলের সাথে সম্পর্কের অবনতি, শীঘ্রই বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন শিশির ও দিব্যেন্দু অধিকারী!

সম্প্রতি সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন অধিকারী পরিবারের শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বিজেপিতে আসলেও এখনও পর্যন্ত তার বাবা শিশির অধিকারী ও ভাই দিব্যেন্দু অধিকারী রয়ে গেছেন তৃণমূলেই। তবে তৃণমূলে তাদের আর যে তেমন প্রভাব নেই ইতিমধ্যে তা স্পষ্ট। কাঁথিতে আজ তৃনমূলের জনসভা। সেই সভায় উপস্থিত থাকছেন সৌগত রায় ও ফিরাদ হাকিমদের মতো তৃণমূল নেতৃত্ব। তবে এই সভায় আমন্ত্রন জানানো হয় নি শিশির অধিকারী ও দিব্যেন্দু অধিকারীকে।
 
এমনকি মঞ্চে কোথাও দেখা যায় নি তাদের ব্যানার। যেখানে আগে মেদিনীপুরের যেখানেই জনসভা হত না কেন সেখানে দেখা যেত অধিকারী পরিবারের ব্যানার। এমতাবস্থায় তৃণমূলের এ ধরনের আচরণ নিঃসন্দেহে অধিকারী পরিবারের কাছে অসন্মানের। শুভেন্দু অধিকারী বলেছিলেন, মান সন্মান নিয়ে তৃনমূলে থাকা সম্ভব নয়।আর তাই তিনি বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন। এবার স্বাভাবিকভাবে জল্পনা উঠেছে এমন অসন্মানের পর অধিকারী পরিবারের আর কেউ তৃণমূলে থাকবেন না।
 
সূত্রের খবর, শীঘ্রই তারা তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে দিয়ে বিজেপিতে যোগদান করতে পারেন। দিন কয়েক আগে শুভেন্দুর বিজেপিতে যোগদানের পর বিভিন্ন জায়গায় শুভেন্দুর ব্যানার ফ্লেক্স ছিঁড়ে দেয় শুভেন্দু বিরোধীরা। আর সেই পরিপ্রেক্ষিতে যারা ব্যানার, ফ্লেক্স ছিঁড়েছে তাদের উদ্দেশ্যে দিব্যেন্দু অধিকারী বলেন, শুভেন্দুর ব্যানার, ফ্লেক্স ছেঁড়া উচিত হয় নি। এরপরই তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের তরফ থেকে একের পর এক কটুক্তি শুনতে হয় দিব্যেন্দুকে। বর্তমান সময়ে অধিকারী পরিবারের সাথে তৃণমূলের সম্পর্ক এমন একটা পর্যায়ে গেছে যে শিশির ও দিব্যেন্দু অধিকারী তৃণমূল ছাড়লে অবাক হবে না বঙ্গ রাজনীতি।
 

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য