তৃণমূল নেতার মেয়ের সঙ্গে ছেলের বিয়ে দিতে চেয়ে বিজ্ঞাপন তথাগতের

বরাবরই ঠোঁটকাটা বলে পরিচিত বঙ্গ বিজেপির নেতা তথা ত্রিপুরার প্রাক্তন রাজ্যপাল তথাগত রায়। কখনও বিতর্কিত পোস্ট করে, আবার কখনও দলেরই নেতাদের বিরুদ্ধে পোস্ট করে বারবার শিরোনামে উঠে এসেছেন তিনি। বিজেপির রাষ্ট্রীয় মহাসচিব কৈলাসও ওনার তোপের মুখ থেকে বাদ যাননি। মুকুল রায় বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যাওয়ার পর তথাগতবাবু একটি পোস্ট করে তৃণমূল নেত্রীকে আবেদন করেছিলেন যে, মুকুল রায়ের বন্ধু কৈলাস বিজয়বর্গীয়কেও যেন তৃণমূলে নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে বাংলার অভিনেত্রী তথা বর্তমানে তৃণমূলের যুব সংগঠনের সভাপতি সায়নী ঘোষের সঙ্গেও তিনি তুমুল বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। এছাড়াও বঙ্গে বিজেপির পরাজয়ের পর কেন্দ্রীয় এবং রাজ্য বিজেপির নেতাদের তুলোধোনা করতে পিছপা হননি তিনি। আর এই কারণে ওনাকে একবার দিল্লীতেও তলব করা হয়েছিল। নিজেই টুইট করে এই কথা জানিয়েছিলেন তিনি। তবে, দিল্লী থেকে ওনাকে তলব করার পরেও দলীয় নেতাদের সমালোচনা বন্ধ করেন নি তিনি। পাশাপাশি রাজ্য সরকারকেও বিভিন্ন ইস্যুতে আক্রমণ করেন তথাগত রায়।আর এরই মধ্যে তথাগত রায়ের একটি ফেসবুক পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হচ্ছে। ওই পোস্টে তথাগতবাবু পাত্রের জন্য তৃণমূল নেতার মেয়ে খুঁজছেন। এদিন সকালে তথাগতবাবু নিজের ফেসবুক ওয়ালে একটি পোস্ট করে লেখেন, ‘ পাত্রী চাই – তৃণমূল নেতার মেয়েকে আমি আমার ছেলের বিয়ে দিতে চাই । তবে তৃণমূল নেতার মেয়ের সঙ্গে । কারণ আমার ছেলে যথেষ্ট শিক্ষিত হওয়া সত্ত্বেও এখনো চাকরি পাইনি । তবে চাকরি পেয়ে যাবে ।

স্কুল-টিচারের জন্য SSC পরীক্ষা দিয়ে ‘সিলেক্ট’ হয়েও আজও ‘ওয়েটি়ং-লিস্টে’ পড়ে রাস্তায় বসে আছে । আমার ছেলের তাই ধারণা ও যদি কোন তৃণমূল নেতার মেয়েকে বিয়ে করতে পারে , তবে ওর সেই চাকরিটা হবে । আমি বললাম, সে নয় বুঝলাম । মেয়ের বাবা যখন তোকে জিজ্ঞেস করবে , ‘চাকরিটা যদি শেষ পর্যন্ত না হয় , তখন আমার মেয়েকে বিয়ে করে কি ভাবে চালাবে ?’ আমার ছেলে সহাস্যে উত্তর দিল , ‘সে তুমি আমার উপরে ছেড়ে দিও , আমি উত্তর দেব ।’তথাগতবাবু আরও লেখেন, ‘ যথাসময়ে আমারই পাশের ওয়ার্ড থেকে এক তৃণমূল নেতা তার মেয়ের সম্বন্ধ নিয়ে আমার ছেলেকে দেখতে এল । আমার বাড়ি ঘর এবং আমার ছেলেকে দেখে তার পছন্দও হয়ে গেল । 

এবার স্বাভাবিক ভাবেই সেই প্রশ্নটা এল। যদি চাকরি আদৌ না হয় , তখন তার মেয়েকে আমার ছেলে কিভাবে খাওয়াবে ? ইত্যাদি ।উত্তরটা এবার আমার ছেলেই দিল । সে খুব স্বাভাবিক স্বরে উত্তর দিয়ে বলল , –‘ স্যার, এখন ‘ফ্রি’তে রেশন পাচ্ছি, স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড আছে ‘ট্রিটমেন্টের’ খরচ নিয়ে কোন চিন্তা নেই , কিছুদিনের মধ্যেই যুবশ্রীর টাকা পাব, 100দিনের কাজ যদি ম্যানেজ করতে পারি, আর আপনার মেয়ে বছরে কন্যাশ্রীর ১০০০টাকা পাবে , আর বিয়ের জন্য যে রূপশ্রীর ২৫ হাজার টাকাটা পাবে — তাই দিয়ে বাকি জীবনটা আমরা ভালোভাবেই কাটিয়ে দিতে পারবো । তাছাড়া মাথার উপরে আমাদের মানে আপনার দিদি তো আছেন ।। আমি বাপের একমাত্র ছেলে । বাড়িঘর সব আছে । চাকরি না পেলেও কি আমার কোন অসুবিধা হবে ? আপনি কী বলেন ?’ মেয়ের বাবা তৃণমূল নেতা আর একটিও কথা না বলে মাথা নিচু করে চলে গেলেন । ”

হ্যাঁ, আমি অনুদান দিতে ইচ্ছুক

    You May Like this Article
 

You May Like

‘নিজের নাক কেটে পরের যাত্রা ভঙ্গ করেছে বিজেপি কর্মী’, বিস্ফোরক শুভেন্দু
তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি বলেই হেরেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা: শুভেন্দু
ঠাঁই নেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায়, রাজ্য যুব মোর্চার পদ থেকে ইস্তফা সৌমিত্রর
‘মানুষ বোকা নয়’, যশ-শ্রাবন্তী-পায়েলকে নিয়ে সমালোচনায় বিজেপি নেত্রী কাঞ্চনা
মুখে লিউকোপ্লাস্ট লাগিয়ে বসে থাকুন, বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ জ্যোতিপ্রিয় র
আজ থেকে অধিবেশন, ভেবে চিন্তে আপাতত পদ্ম সারিতেই বসবেন মুকুল
হোয়াটসঅ্যাপ এর বার্তা ফাঁস করে ষড়যন্ত্রর প্রমাণ দিলেন দেবাংশু !
‘রাজ ভবনে কেন দেবাঞ্জনের দেহরক্ষী?’রাজ্যপালের সঙ্গে ছবি প্রকাশ করে তোপ তৃণমূলের
‘পরকীয়া’য় বেশি মন রাজ্যপালের, বিতর্কিত দাবি মদন মিত্রের
ভোটার সংখ্যা ৬৭৬, কিন্তু ভোট পড়ল ৭৯৯! নন্দীগ্রামের নথি নিয়ে তোলপাড় রাজ্য